প্রয়োজন হলে WhatsApp ব্যবহার করার দরকার নেই, বলছে দিল্লি হাইকোর্ট

আমরা সকলেই জানি হোয়াটসঅ্যাপের নতুন প্রাইভেসি পলিসি এর আপডেট এসেছে যা নিয়ে সারা ভারতে যথেষ্ট জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। 

হোয়াটসঅ্যাপের প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে দিল্লি হাইকোর্টের একটি পিটিশন জামা পড়ে, অ্যাডভোকেট রীরাগ রহিল্লা এই পিটিশন নিয়ে আসে। সোমবার এই পিটিশনের শুনানি দিতে গিয়ে দিল্লি হাইকোর্ট বলে হোয়াটসঅ্যাপ একটি প্রাইভেট অ্যাপ, তাই হোয়াটসঅ্যাপের নতুন প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে যদি কারো সমস্যা থাকে তবে সে অ্যাপটি কে নিজের ফোন থেকে মুছে ফেলতে পারেন। বাজারে আরো অনেক অ্যাপ রয়েছে সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন। এই মামলার পরবর্তী শুনানির দিন হল 25 শে জানুয়ারি।

হোয়াটসঅ্যাপের হয়ে যিনি আইনজীবী ছিলেন তিনি বলেন যে শুধুমাত্র ব্যবসায়ীক অ্যাকাউন্ট গুলির বার্তা গুলিকে নিয়ে প্রাইভেসি পলিসি পরিবর্তন হয়েছে। গত পাঁচ বছরে হোয়াটসঅ্যাপ তাদের অ্যাপে কোন প্রাইভেসি পলিসি পরিবর্তন করেনি। ব্যক্তিগত কথোপকথন সব সময় গোপন থাকবে, আইনজীবী আশ্বাস দেন।

আরো পড়ুন- ডেটা শেয়ারিং সংক্রান্ত আপডেট আপাতত স্থগিত রাখল হোয়াটসঅ্যাপ

মামলাকারীর তরফ থেকে বলা হয়েছে, ভারতীয় সংবিধান মানুষের যে গোপনীয়তার অধিকার দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ তা ভঙ্গ করেছে। ৮ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে হোয়াটসঅ্যাপ তাদের এই নতুন পলিসি মেনে নিতে বলেছে সকলকে। তবে হোয়াটসঅ্যাপ বর্তমানে তাদের এই আপডেট কে স্থগিত রেখেছে।

হোয়াটসঅ্যাপ তাদের টুইটার একাউন্টের মাধ্যমে সকলকে জানিয়ে দেয় যে ৮ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে কোন হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর একাউন্ট স্থগিত বা মুছে ফেলা হবে না। মে মাস পর্যন্ত আমরা আমাদের প্রাইভেসি পলিসি এর আপডেট স্থগিত রাখছি।

Leave a Reply