জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমিত করতে তৈরি হবে অবজারভেটরি, নাসা-ইসরোর যৌথ উদ্যোগে

সম্প্রতি ভারতের উপকূলবর্তী অঞ্চলের দিকে ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় YAAS এর মত বিপর্যয় প্রায় প্রতিবছরই দেখা দেয়। যার একটি বড় কারণ জলবায়ু পরিবর্তন। এই জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে মাঝেমধ্যেই বড়সড় ঘূর্ণিঝড়, দাবানল এবং জঙ্গলে আগুন লেগে যাওয়ার মতো বিপর্যয় গুলি দেখতে পাওয়া যায়। যে কারণে এই জলবায়ু পরিবর্তনকে প্রশমিত করার জন্য ইন্ডিয়ান স্পেস অ্যান্ড রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ISRO)ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (NASA) এর যৌথ উদ্যোগে তৈরি হতে চলেছে আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট (Earth Observatory)। যেখানে নাসা ইসরো কে সাহায্য করবে তাদের রাডার সিস্টেম দ্বারা এবং ইসরো এই রাডার সিস্টেমটির সাহায্যে জলবায়ু পরিবর্তন এবং বিভিন্ন বিপর্যয় সম্পর্কিত মূল তথ্য গুলি গ্রহণ করতে সক্ষম হবে।

যৌথ উদ্যোগে তৈরি এই আর্থ সিস্টেম অবজারভেটরি এর প্রতিটি অংশে থাকবে স্যাটেলাইট। যেগুলির প্রত্যেকটি নতুন ভাবে ডিজাইন করা। এই স্যাটেলাইট গুলি একসঙ্গে কাজ করবে এবং পৃথিবীর একটি 3D ভিউ তৈরি করবে। যে 3D ভিউটি হবে পৃথিবীর ভূপৃষ্ঠের নিচ থেকে উপরের বায়ুমণ্ডল পর্যন্ত।

আরো পড়ুন- রহস্যজনক রেডিও সিগন্যাল এর উৎস আবিষ্কার করল নাসা, তবে কি এলিয়েন?

আরও পড়ুন- টাইগার-3 সিনেমাতে কারা অভিনয় করছেন, কে নায়িকা, কে ভিলেন আসুন দেখে নেওয়া যাক

এই অবজারভেটরি বর্তমানে প্রথম পর্যায় থাকলেও ইসরোর তরফ থেকে দুটি রাডার সিস্টেম সরবরাহ করা হয়েছে এটিতে। যেগুলি পৃথিবীর ভূপৃষ্ঠকে অর্ধেক ইঞ্চি দূরত্বে থেকে পর্যবেক্ষণ করতে সক্ষম। এই রাডার গুলি অবজারভেটরির প্রথম মিশনে ব্যবহার করা হবে। যেটির নাম দেয়া হয়েছে নাসা-ইসরো সিন্থেটিক অ্যপারচার রাডার (NISAR)

আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইটের প্রধান কাজ:
নতুন এই সিস্টেমটি বায়ুর গুণমান, গ্লোবাল এনার্জীর ভারসাম্য এবং আবহাওয়ার পূর্বাভাস এর মতো জটিল প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বার করবে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে খাদ্য ও কৃষি এবং প্রাকৃতিক সম্পদের উপর প্রভাব বিশ্লেষণ করতে এই অবজারভেটরি থেকে প্রাপ্ত তথ্য ব্যবহার করবে বিজ্ঞানীরা।

Leave a Reply