বিড়ালের রাস্তা কাটলে দাঁড়িয়ে যেতে হয় কেন? অন্ধবিশ্বাস নয়, জেনে নিন বৈজ্ঞানিক কারণ

বিড়ালের রাস্তা কাটলে দাঁড়িয়ে যেতে হয় কেন?

বিড়ালে রাস্তা কাটলে বা রাস্তা পার হলে কিছুক্ষণ থেমে দাঁড়িয়ে যেতে হয়, এই অন্ধ বিশ্বাসটা আমরা ছোটবেলা থেকেই অনেকে পালন করে আসছি। পূর্বপুরুষদের থেকে শিক্ষা নিয়ে বর্তমান প্রজন্মের লোকেরাও একটি মেনে চলে আসছে। কিন্তু আপনার মনে কখনো প্রশ্ন এসেছে যে কেন আমরা এই অন্ধবিশ্বাস মেনে চলি? কোথা থেকেই বা এই প্রচলিত অন্ধবিশ্বাসের সূত্রপাত। আজ এই অন্ধবিশ্বাসের কিছু বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নিচে দেওয়া হল।

প্রাচীনকালে আমরা সবাই জানি যাতায়াতের জন্য গরুর গাড়ি, ঘোড়ার গাড়ি, মোষের গাড়ি ইত্যাদি ব্যবহৃত হয়ে থাকতো। গরুর গাড়ি চলার সময় তার সামনে দিয়ে যদি বিড়াল রাস্তা পার হত, তবে গরু একটু অস্বস্তিতে পড়তো। সেই কারণে গরুর গাড়ির চালক গরুকে শান্ত করার জন্য কিছুক্ষণ থেমে যেতো এবং পুনরায় রওনা দিত। মূলত এখান থেকেই বিড়াল রাস্তা পার হলে গাড়ি থামিয়ে দেওয়ার অন্ধবিশ্বাস তৈরি হয়ে যায়।

এছাড়া অন্যান্য তথ্য বলে, বিড়াল যেহেতু ছোট্ট একটি প্রাণী সেই কারণে বিড়ালকে বড় পশু বা মানুষ তারা করলে তারা খুব দ্রুত ছুটে বেড়ায়। ফলে রাস্তার উপর দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের সঙ্গে এক্সিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। সেই কারণেও এই অন্ধবিশ্বাস তৈরি হওয়ার কারণ হয়ে উঠতে পারে।

আরো পড়ুন- পৃথিবীর ৫টি সবচেয়ে বিষাক্ত মাছ

এছাড়া পুরান শাস্ত্র মতে বিড়াল হলো রাহুর বাহন এবং রাহুকে অশুভ বলে মনে করা হয়। সেই কারণে বিড়াল রাস্তা কাটলে সেটিকে যাত্রাপথে অশুভ বলে মনে করা হয়ে থাকে। এই অন্ধবিশ্বাস প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে প্রচলিত হয়ে আসছে যা অনেক মানুষজন এখনো মেনে চলে।

(Disclaimer- অন্ধবিশ্বাস হলো প্রচলিত হওয়া একটি তত্ত্ব যা মেনে চলা প্রত্যেকের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। আমাদের ওয়েবসাইট কখনোই এই ধরনের অন্ধবিশ্বাসকে বিশ্বাস করেনা ও মেনে চলতে উৎসাহিত করে না।)

Leave a Reply