আগামী বছরেই Chandrayaan 3 উৎক্ষেপণ করতে চলেছে ইসরো, কিন্তু কবে?

বিশ্বজুড়ে চলা মহামারীর কারণে প্রায় এক বছর পিছিয়ে গেল চন্দ্রযান-৩ এর উৎক্ষেপণ। ভারতের অন্যতম স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন ইসরো (ইন্ডিয়ান স্পেস অর্গানাইজেশন) এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে আগামী বছরেই অর্থাৎ ২০২২ সালের থার্ড কোয়ার্টার অর্থাৎ তৃতীয় ত্রৈমাসিকে লঞ্চ করা হবে চন্দ্রযান-৩। প্রায় দীর্ঘদিন ধরে এই অভিযানের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল ইসরোর বিজ্ঞানীরা। কিন্তু বিশ্বজুড়ে চলা করোনা মহামারীর কারণে বারংবার পিছিয়ে নিতে হয়েছে এই অভিযান। অভিযান সম্পর্কে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং জানিয়েছেন, চন্দ্রযান-৩ এর উপর বর্তমানে ভারতীয় বিজ্ঞানীরা কাজ করে চলেছেন।

শুধু ভারতেই নয় সারা বিশ্ব করোনা মহামারীর কবলে। যে কারণে একপ্রকার স্তব্ধ হয়ে পড়েছে সম্পূর্ণ বিশ্ব। বর্তমানে ওয়ার্ক ফ্রম হোম থেকেই চন্দ্রযান-৩ এর কাজ করে চলেছেন বিজ্ঞানীরা। যতটা সম্ভব অভিযানের জন্য প্রস্তুতি নেয়া শুরু করে দিয়েছেন তারা। চন্দ্রযান-২ এর অসফল অভিযানের পর থেকেই চন্দ্রযান-৩ লঞ্চের পরিকল্পনা করছেন বিজ্ঞানীরা। শুধু এই অভিযানই নয়, থমকে গিয়েছে আরও বেশ কয়েকটি অভিযানও।

চন্দ্রযান-৩ মিশন নিয়ে ইসরোর প্রধান কে শিবন জানিয়েছেন চন্দ্রযান-২ এর মতই কনফিগারেশন রয়েছে চন্দ্রযান-৩এ। শুধু তাই নয় চন্দ্রযান-২ উৎক্ষেপণ এর সময় যে অরবিটার লঞ্চ করা হয়েছিল এক্ষেত্রেও সেটাই ব্যবহার করা হবে। ইসরোর প্রধান কে শিবন গত ফেব্রুয়ারি মাসে জানিয়েছিলেন ২০২২ সালে চন্দ্রযান-৩ মিশন হতে পারে এবং সম্প্রতি তা নিশ্চিত করেছেন তিনি। বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী নির্দিষ্ট দিন এখনো ঠিক না হলেও বছরের মাঝামাঝি সময়ে উৎক্ষেপণ করা হবে চন্দ্রযান-৩ এবং খুব শীঘ্রই সময়কাল জানিয়ে দেওয়া হবে ইসরোর তরফ থেকে।

আরো পড়ুন-দশম উড়ান সম্পন্ন করে রেকর্ড গড়লো নাসার Ingenuity mars helicopter

এই প্রসঙ্গে বলে রাখা যায়, প্রথম চন্দ্র অভিযান হয়েছিল ২০০৮ সালে এবং সেই অভিযানের মূল লক্ষ্য ছিল চাঁদের বুকে জলের অস্তিত্ব খুঁজে বের করা। বলাবাহুল্য ইসরো এই অভিযানে সফলতা অর্জন করেছিল। এর পরবর্তী অভিযান হয়েছিল চন্দ্রযান-২, যে অভিযানের মূল লক্ষ্য ছিল চাঁদের অন্ধকারাচ্ছন্ন অংশের পৌঁছানো এবং গবেষণা করা। তবে দুর্ভাগ্যবশত অবতরণের আগেই ভেঙ্গে পড়ে চন্দ্রযান-২। অভিযানটি অসফল হলেও অর্বিটারটি এখনো সচল রয়েছে এবং সেই অর্বিটারই পুনরায় ব্যবহার করা হবে নতুন অভিযানের জন্য। অর্বিটারটি বর্তমানে চন্দ্রপৃষ্ঠের সাথে সৌরজগতের উপরে নজরদারি চালিয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply