পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘজীবী তোতাপাখি। যে পাখি উড়তে পারে না

পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘজীবী তোতাপাখি: ভারতবাসী এবং বাঙালিরা বিশেষ করে তোতা পাখি দেখেনি হয়তো খুব কম লোকই আছে। ভারতবর্ষে সাধারণত সবুজ তোতা বেশি পরিমাণে দেখা যায়। অনেকেই নিজের বাড়িতে শৌখিনতার জন্য খাঁচায় এই পাখিটি কে সাজিয়ে রাখে। কিন্তু যখনই পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘজীবী তোতাপাখির নাম আসে তখন আমাদের একটু ভারতের বাইরে যেতে হবে। কাকাপো তোতাপাখি হলো পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘজীবী তোতাপাখি যা নিউজিল্যান্ডে দেখতে পাওয়া যায়। নিউজিল্যান্ড ছাড়া পৃথিবীর অন্য কোন জায়গায় কাকাপো তোতা পাখি দেখা যায় না। পাখিগুলি বর্তমানে খুবই সীমিত পর্যায়ে রয়েছে, নব্বইয়ের দশকে এই পাখির সংখ্যা ছিল মাত্র ৫০টি পরবর্তীকালে নিউজিল্যান্ডের সরকার পাখিটির সংরক্ষণের উপর জোর দেয়। বর্তমানে এই কাকাপো পাখিগুলির সংখ্যা ২১৩ তে দাঁড়িয়েছে।

পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘজীবী তোতাপাখি

কাকাপো পাখি (Kakapo bird) এই কাকাপো তোতাপাখি নিউজিল্যান্ডের একটি দ্বীপে বেশি দেখাযায়। পাখিগুলি ওজনে অত্যন্ত ভারি ও শক্তিশালী হয়। এই পাখির অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য হলো পাখিগুলি উড়তে পারে না, ডানা থাকলেও শারীরিক ওজনের কারণে কাকাপো পাখি উঠতে সক্ষম নয়। পাখি গুলি বেশিরভাগই জঙ্গলে থাকে ও চলাচলের জন্য তারা নিজেদের ডানাকে ব্যবহার করে শরীরের ভারসাম্য রাখার জন্য। পুরুষ কাকাপো স্ত্রী কাকাপো পাখিকে আকৃষ্ট করার জন্যে জোরে জোরে আওয়াজ করে। এছাড়াও পাখিগুলি অত্যন্ত জোরে ডাকতে সক্ষম।  

কাকাপো তোতাপাখি উঠতে না পারলেও এদের পা দু’টি অত্যন্ত মজবুত বলা যেতে পারে, কারণ এই পা এর সাহায্যে পাখিগুলি গাছে উঠতে পারে। উড়তে না পারার কারণে পাখিগুলি খুব সহজে শিকারি পাখি ও জীবজন্তুর আক্রমণের শিকার হয়। সেই কারণে এই তোতাপাখি একটি বিশেষ প্রক্রিয়ায় গ্রহণ করে যেটি হলো, পাখিটি যখন কোনো বিপদের সম্মুখীন হয় তখন তোতাপাখিটি একদম স্থির হয়ে স্ট্যাচুর আকার ধারণ করে। পাখিগুলির রঙ একদম সবুজ লতা-পাতার বর্ণের ফলে খুব সহজেই এরা প্রকৃতির সাথে মিশে যেতে পারে। কিন্তু কোন শিকারি মানুষের সামনে যদি এরা চলে আসে তবে এই পদ্ধতি পাখি গুলোকে শিকার করার জন্য অত্যন্ত সহজ হয়েপরে।  

আরো পড়ুন- কয়েকটি সৌভাগ্যসূচক পাখি। বিশ্বের এমন কিছু পাখি যেগুলি সৌভাগ্যের প্রতীক

কাকাপো তোতাপাখিটিকে নিউজিল্যান্ডে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। বিভিন্ন সময়ে পাখিগুলি চর্মরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে তখন এদের পশু চিকিৎসালয় চিকিৎসা করা হয়। ২০২০ সালে কাকাপো পাখিকে নিউজিল্যান্ডের বার্ষিক সেরা পাখির তালিকায় প্রথম স্থান দেওয়া হয়েছে। এর পূর্বেও ২০০৮ সালে পাখিটিকে এই খেতাব দেওয়া হয়েছিল। এই প্রতিযোগিতায় নিউজিল্যান্ডের প্রায় ৫০ হাজার লোক নিজেদের ভোট প্রদান করেছে।   

বিশেষত এটি নিউজিল্যান্ডের একটি পরিবেশ সুরক্ষা সচেতনতার জন্য আয়োজন করা হয়। কাকাপো তোতা পাখি মানুষের মতোই ৯০-১০০ বছর বাঁচতে। পৃথিবীতে পাখি প্রজাতির মধ্যে তোতা পাখির জীবনের আয়ু সবচেয়ে বেশি হয়। ওয়েবসাইট ‘কোরা’ অনুসারে কাকাপোমাকাউ তোতাপাখি পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘজীবী পাখি প্রজাতি বলে উল্লেখ করা হয়েছে। বর্তমানে পৃথিবীর সবচেয়ে বয়স্ক পাখির নাম হলো ‘উইজডম‘ যা ‘আলবাট্রস‘ পাখি প্রজাতির একটি পাখি।

Leave a Reply