ফসল উৎপাদন করা হলো মহাকাশ কেন্দ্রে, নাসা ছবি ও একটি ভিডিও প্রকাশ করলো

সিনেমার গল্প এবার বাস্তবে রূপান্তরিত হলো, সাইন্টিফিক বহু সিনেমাতে আপনারা দেখতে পেয়েছেন মহাকাশে বা ভিন গ্রহে মহাকাশচরীরা ফসল উৎপাদন করছে এবার সেটারই বাস্তবায়ন করলো নাসা। আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে নাসার এক মহাকাশচরী যার নাম ‘কাটে রুবিনস’ তিনি মুলার চাষ করে সফলতা অর্জন করেছেন। আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে নাসা বহু দিন ধরেই ফসল উৎপাদন নিয়ে গবেষণা করছে। গত ৩০শে নভেম্বর নাসা তাদের ‘নাসা ৩৬০‘ ফেসবুক পেজে এর মাধ্যমে ছবি ও গাছ গুলি বড়ো হয়ে যাওয়ার একটি সুপার ফাস্ট মোশনের ভিডিও প্রকাশ করে।ভিডিওটিতে গাছ গুলো ছোট থেকে বড় হয়ে যাওয়ায় সম্পূর্ণ রুপটি প্রকাশ করা হয়েছে।

মহাকাশ কেন্দ্রে নাসার ‘প্লান্ট হাবিট‘ মিশন এর অন্তর্গত এই গবেষণাটি করা হয়েছে একটি ছোট ও স্বল্প জায়গায় এই ফসলের চাষ করা হয়েছে। আপনি হয়তো ভাবতে পারেন নাসা মূলকেই কেন বেছে নিল পরীক্ষা করার জন্য, আসলে মুলা খুবই দ্রুত বড় হয়ে যায় ফসলটি বড় হতে সময় নেয় মাত্র একমাস। এই কারণে নাসা মুলকেই বেছে নিয়েছে, তবে মহাকাশ কেন্দ্রতে মূল ছাড়াও অন্যান্য ফসল নিয়েও পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। এই ফসল গুলি ২০২১ সালে স্পেসএক্স এর একটি মিশনের মাধ্যমে মহাকাশ স্টেশন থেকে পৃথিবীতে নিয়ে আসা হবে। 

পৃথিবীতে গবেষকরা ফসল গুলির গবেষণা করবে যাতে এর মধ্যেকার খনিজ, লবণ ও গুনাগুণ বোঝা যায়। শুধু মহাকাশ কেন্দ্রে নয় পৃথিবীতে কেনেডি স্পেস সেন্টার ফ্লোরিডাতে এই একই পদ্ধতিতে চাষ করা হয়েছে। বিজ্ঞানীরা মহাকাশ স্টেশন থেকে আগত মুলা এবং পৃথিবীতে উৎপাদিত মুলার মধ্যে পার্থক্য বোঝার চেষ্টা করবে। 

আরো পড়ুন- চীন দ্বারা নির্মিত বিশ্বের বৃহত্তম রেডিও টেলিস্কোপ

নাসা বহুদিন ধরেই মহাকাশে ফসল উৎপাদনের প্লান্ট তৈরির প্রচেষ্টা করছে, ভবিষ্যতে চাঁদে নাসার এই ধরণের প্লান্ট তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে। নাসার কাছে ফসল উৎপাদন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, কারণ আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্র থেকে শুরু করে ভবিষ্যতে চাঁদে মানুষের আস্থানা করার জন্য নাসাকে মহাকাশচারী দের জন্য প্রচুর খাবার পাঠাতে হয়। সেক্ষেত্রে মহাকাশ যানের ওজন ও জায়গা দুটোই নষ্ট হয়। নাসার মহাকাশচারীর মতে, নাসার মঙ্গল মিশন এর জন্য এই ‘প্লান্ট হাবিট’ মিশন যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। 

মঙ্গলে মানব মিশনের ক্ষেত্রে নাসা দীর্ঘস্থায়ী মিশনের পরিকল্পনা করতে পারবে। মুলা খুব দ্রুত পরিণত হয়ে যায়, সেই কারনে নাসা কম মেয়াদি ফসল গুলিকে ‘growth chamber‘ এর মাধ্যমে উৎপাদন করার প্রচেষ্টা করছে। এই চেম্বারটি এলিডি লাইট, সার, জল ও অক্সিজেনের সংমিশ্রণে তৈরি। প্রয়োজনমতো এই জিনিসগুলো ফসল উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়। তবে এই মিশনটির পূর্বেও মহাকাশ গবেষকরা মহাকাশে ফসল উৎপাদন করেছে। সেই সমস্ত ফসল গুলির মধ্যে চাইনিজ বাঁধাকপি, রাশিয়ান কালে, জিনিয়া ফুল ইত্যাদি রয়েছে।

Leave a Reply