সূর্যের বায়ুমন্ডলের তুলনায় পৃষ্ঠদেশ শীতল! কারণ খুঁজতে বিজ্ঞানীদের নয়া অভিযান

পৃথিবীর সবচেয়ে কাছের নক্ষত্র সূর্য। যে নক্ষত্রকে সৌরজগতের কেন্দ্র বিন্দু বা পৃথিবীর ‘পেরেন্ট স্টার’ও বলা হয়। আর এই নক্ষত্রটি নিয়ে সাধারণ মানুষ তথা জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের কৌতুহল বরাবরই। সূর্য সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানার প্রচেষ্টা বিজ্ঞানীরা চালিয়ে যাচ্ছেন বহুযুগ ধরে। অতি উজ্জ্বল এবং উত্তপ্ত এই নক্ষত্রের মাঝে লুকিয়ে আছে সৌরজগতের সৃষ্টির রহস্য থেকে ভবিষ্যৎ রহস্য। এবার জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা সেই অভিযানে নামতে চলেছেন। সূর্যের পৃষ্ঠদেশ এর চেয়ে বায়ুমণ্ডল বেশি উত্তপ্ত, যার কারণ খুঁজতে বিজ্ঞানীদের নয়া অভিযান MaGIXS Mission

সূর্যের অ্যাটমোস্ফিয়ারে সবচেয়ে বাইরের অংশকে বলা হয় ‘সোলার করোনা’। বিজ্ঞানীরা জানতে পেরেছেন সূর্যের এই বাইরের অংশ অর্থাৎ সোলার করোনা থেকে সূর্যের অভ্যন্তরীণ সারফেস বা পৃষ্ঠদেশ অনেক বেশি ঠান্ডা। সূর্যের এই দুই অংশের তাপমাত্রার তারতম্যের কারণ খতিয়ে দেখতে চান তারা। সূর্যের পৃষ্ঠদেশ এবং বায়ুমণ্ডলের তাপমাত্রা তারতম্য-এর রহস্য জানতেই সূর্যের সারফেসের উপর অভিযান চালাতে চাইছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা এই অভিযানের জন্য ব্যবহার করবেন এক্সরে সোলার ইমেজার, যা সম্প্রতি লঞ্চ করা হয়েছে। এক্সরে সোলার ইমেজারের সাহায্যে সূর্যের অভ্যন্তরীণ দৃশ্য দেখা যাবে এবং তা পর্যবেক্ষণ করেই বিজ্ঞানীরা বুঝতে পারবেন তাপমাত্রার তারতম্যের কারণ। নিউ মেক্সিকোর হোয়াইট স্যান্ডস মিসাইল রেঞ্জ থেকে লঞ্চ করা হয়েছে এই সোলার ইমেজার, যার নাম Marshall grazing incidence x-ray spectrometer। একটি সাব অরবিটাল ফ্লাইটে করে সাউন্ডিং রকেটের মাধ্যমে এই সোলার ইমেজারটি লঞ্চ করা হয়েছে।

আরো পড়ুন-ব্ল্যাকহোলের পিছন থেকে বেরোচ্ছে আলোক রশ্মী! নতুন আবিষ্কারের হতবাক বিজ্ঞানীরা

গত জুলাই মাসের ৩০ তারিখ MaGIXS মিশনের জন্যে সাউন্ডিং রকেট লঞ্চ করা হয়। রকেটের মধ্যে রয়েছে একটি টেলিস্কোপ, এক্সরে স্পেকট্রোমিটার এবং একটি শক্তিশালী ক্যামেরা। এক্সরে স্পেকট্রোমিটারের মধ্যে রয়েছে একটি প্যারাবোলিক মিরর। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন এই ধরনের অভিযান এর আগে কখনো হয়নি। যেহেতু সূর্যের সোলার করোনা এর হিটিং মেকানিজম সম্পর্কে বিজ্ঞানীদের ধারনার পরিমান খুবই সীমিত তাই সোলার প্লাজমায় তাপমাত্রার বন্টন কিভাবে হয়েছে তা পরিমাপ করতে পারেননি তারা। যেহেতু এর পূর্বে সোলার করোনা নিয়ে বিশদে গবেষণার সুযোগ হয়নি সেই কারণ এই প্রথমবার MaGIXS মিশন এর সাহায্যে সূর্যের তাপমাত্রা পরিবর্তন পরিমাপ করা হবে।

Leave a Reply