আজ সবথেকে কঠিন চতুর্থ উড়ান সম্পন্ন করবে নাসার ইনজেনুইটি হেলিকপ্টার

তিনটি সফল পরীক্ষামূলক উড়ানের পর অবশেষে সবথেকে বড় ও সবচেয়ে কঠিন উড়ান সম্পন্ন করতে চলেছে নাসার ইনজেনুইটি হেলিকপ্টার। এই উড়ানটি হবে ইনজেনুইটির চতুর্থ ও এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং উড়ান।

ছোট্ট হেলিকপ্টারটি আজ অর্থাৎ ২৯এপ্রিল Jezero ক্রেটার এর উপর দিয়ে উঠতে চলেছে। যেখানে নাসার পারসিভারেন্স রোভারটি অবতরণ করেছিল। এবং বর্তমানে নাসার কাছে এটি একটি বৃহত্তম ও সাহসী লক্ষ।

নাসার এই ছোট্ট হেলিকপ্টারটি তৃতীয় উড়ান সম্পন্ন করার পর যখন মঙ্গলের মাটি স্পর্শ করে ঠিক সেই সময়ে আগামী দিনে মঙ্গলে কি ধরনের হেলিকপ্টার পাঠানো যাবে তা নিয়ে গবেষণা লেগে পড়ে ইঞ্জিনিয়াররা- এমনটাই জানান নাসার জেট প্রপুলসন ল্যাবরেটরি থেকে ইনজেনুইটির চিফ ইঞ্জিনিয়ার J. “Bob” Balaram। এছাড়াও তিনি জানান, আগামী দিনে এই ধরনের হেলিকপ্টারের পরিসর, গতি এবং সময়সীমা কিভাবে বাড়ানো সম্ভব সে বিষয়েও তারা প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছেন।

আরো পড়ুন- মঙ্গল গ্রহের আকাশে নতুন রেকর্ড গড়লো নাসার ইনজেনুইটি হেলিকপ্টার

১.৮ কিলোগ্রাম ওজনের ছোট্ট এই ইনজেনুইটি হেলিকপ্টারটি তার চতুর্থ উড়ান শুরু করবে সকাল ১০.১২ মিনিটে (EDT- Easter daylight time)। প্রাপ্ত সমস্ত তথ্যই ১.২১ মিনিটে(EDT) পৌঁছে যাবে JPL এর কাছে, এমনটাই জানানো হয় নাসার তরফ থাকে।

ইনজেনুইটি গত ১৯ এপ্রিল তার প্রথম উড়ানের সাথে ইতিহাস গড়ে ফেলেছিল। এই উড়ানে এটি মাত্র ৩ মিটার মাটির উপরে উঠতে পেরেছিল। এরপর আরও দুটি উড়ান সম্পন্ন করে ইনজেনুইটি। গত ২৫ এপ্রিল ৫ মিটার (১৬ ফিট) উচ্চতা পর্যন্ত উঠতে পেরেছে ৪.৫ মাইল প্রতি ঘন্টার গতিতে (৭.২ কিমি প্রতি ঘন্টা) এবং পারসিভারেন্স-এর ছবিও তুলেছিল ভাসমান অবস্থায়।

ইনজেনুইটির চতুর্থ উড়ানে এটির লক্ষ্য থাকবে আরো দ্রুতগতিতে অনেক বেশি পথ অতিক্রম করা। যদি সবকিছু পরিকল্পনামাফিক হয় তবে এটি ৮ মাইল প্রতি ঘন্টা (১২.৮ কিমি/ঘন্টা) গতিতে ১৬ ফিট পর্যন্ত উচ্চতায় উড়বার চেষ্টা করবে। প্রথমে এটি দক্ষিনে ৮৪ মিটার পর্যন্ত গিয়ে পাথর, বালি এবং ছোট ছোট গহ্বরের ছবি তুলবে। যদি কোন যান্ত্রিক গোলযোগ দেখা না দেয় তাহলে এটিকে আরো ১৩৩ মিটার পর্যন্ত উড়বে ছবি তোলার জন্য। তারপর নিজের জায়গায় ফিরিয়ে আনা হবে ইনজেনুইটিকে। নাসার এই মিশন সফল হয় কিনা সেটাই এখন দেখার।

Leave a Reply