চীনের স্পেস স্টেশন থেকে লঞ্চ করা রকেটের ধ্বংসাবশেষ আছড়ে পড়বে পৃথিবীতে, কিন্তু কোথায়?

বিশালাকারের একটি চাইনিজ রকেট এর ধ্বংসাবশেষ মহাকাশ থেকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করেছে। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের প্রবেশের পর এটি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় এবং এটি যেকোন মুহূর্তে পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়তে পারে। তবে এখনো পরিষ্কার হয়নি যে পৃথিবীর কোন জায়গায় আঘাত আনতে চলেছে এই রকেটটি।

চীনের এই রকেটটির নাম ‘long march 5B‘, যেটি অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে পৃথিবীতে ফিরে আসতে চলেছে। Wenchang-এর স্থানীয় সময় অনুযায়ী বৃহস্পতিবার চীনের স্পেস স্টেশন থেকে একটি লঞ্চ করা হয়। ২২.৫ মেট্রিক টন ওজনের তিয়ানহে স্পেস স্টেশনের মডিউলটি রকেটের মূল স্তর থেকে বিচ্ছিন্ন হয় পরিকল্পনামাফিক। যেটি পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে কিছু দিন অথবা এক সপ্তাহের মধ্যেই প্রবেশ করবে বলে জানানো হয়।

আরো পড়ুন-অবশেষে নাসার ৪ মহাকাশচারী পৃথিবীতে ফিরলেন SpaceX-এর ক্যাপসুলে চেপে

স্পেস নিউজ-এর তরফ থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, এটি একটি বৃহত্তম এবং অনিয়ন্ত্রিত মহাকাশযান। যেটি যেকোনো জনবহুল এলাকাতেও ভেঙে পড়তে পারে। তবে যেহেতু পৃথিবীর ৭০ শতাংশই সমুদ্র দিয়ে ঘেরা, সেক্ষেত্রে জনবসতি যুক্ত এলাকায় ভেঙ্গে পড়ার সম্ভাবনা কম বলে জানিয়েছেন তারা।

গত কয়েক দশকে ঠিক এমনই রকেটের ধ্বংসাবশেষের পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়ার ঘটনা ঘটেছে বেশ কয়েকটি। যার মধ্যে ছিল চাইনিজ টিয়াঙ্গং স্পেস স্টেশন, ইউরোপের গ্রাভিটি ফিল্ড এবং স্টাডি-স্টেট ওশান সার্কুলেশন এক্সপ্লোরার। তবে ধ্বংসাবশেষের অধিকাংশই পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গেই জ্বলে ছাই হয়ে গিয়েছে এবং বড় টুকরোগুলির অংশই কেবল মাটিতে পৌঁছাতে পেরেছে। চীনের এই রকেটটি ভূপৃষ্ঠে কতটা পৌঁছাবে এবং কতটা ক্ষয়ক্ষতি করবে সে বিষয়ে সঠিক কোন তথ্য দেওয়া সম্ভব হয়নি স্পেস স্টেশনের তরফ থেকে।

“চীনের স্পেস স্টেশন থেকে লঞ্চ করা রকেটের ধ্বংসাবশেষ আছড়ে পড়বে পৃথিবীতে, কিন্তু কোথায়?”-এ 2-টি মন্তব্য

Leave a Reply