আইপিএল দলের মালিকরা কিভাবে আয় করে 2023

আইপিএল দলের মালিকরা কিভাবে আয় করে 2023: ভারতবর্ষে আইপিএল মানেই একটি উৎসব। 2007 সালে ভারত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতার পর বিসিসিআই ভারতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ(IPL) চালু করে। সেই থেকে আজ পর্যন্ত সফলভাবে IPL আয়োজন করে আসছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। এখন আপনাদের মনে প্রশ্ন হতেই পারে প্রতি বছর আইপিএলে ক্রিকেটারদের কোটি কোটি অর্থের বিনিময়ে নিলামের মধ্য দিয়ে কেনা হয়। কিন্তু আইপিএলের 8 টি দল এত টাকা পায় কোথায় বা কীভাবে তারা আইপিএল থেকে অর্থ উপার্জন করে।

প্রথমেই বলে রাখি আইপিএলে যে 8 টি দল অংশগ্রহণ করে সেই 8 টি দলের মালিকরা অনেক বড় ব্যবসায়ী বা কোন কোম্পানির মালিক হয়। ফলে অর্থের অভাব তাদের কাছে খুব একটা হয় না। এমনকি তাদের দল যদি পরাজিত হয় তবে তাদের কোনো ক্ষতি হয় না। কারণ শুধুমাত্র ম্যাচের উপর মুনাফা নির্ধারণ হয় না।

নিচে 8 টি বিষয় উল্লেখ করা হলো যার সাহায্যে আপনারা সহজেই বুঝতে পারবেন আইপিএল দলের মালিকরা কিভাবে আয় করে।

আইপিএল দলের মালিকরা কিভাবে আয় করে 2023

1.আইপিএল সম্প্রচারকারী চ্যানেল

আইপিএল দলের মালিকদের সিংহভাগ আয় হয় আইপিএলের সম্প্রচারকারী সংশ্লিষ্ট টিভি চ্যানেল ও অনলাইন লাইভ স্ট্রিমিং অ্যাপ থেকে। 60% আয় এখান থেকেই হয় ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর। তবে আয়ের পরিমাণ নির্ভর করে কিছু বিষয়ের উপর। কোন দল যদি লীগ পর্যায়ে তাদের মৌরসুম শেষ করে তবে কিছুটা কম অর্থ, আবার যে 4 টি দল প্লে-অফে জায়গা করে নেয় তাদের একটু বেশি আয় হয়। সব থেকে বেশি আয় করে ফাইনালে ওঠা দুই দলের মালিকরা।

এছাড়া সংশ্লিষ্ট দল কটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলেছে, কত লোক ম্যাচ গুলির দেখেছে এবং সম্প্রচারকারী টিভি চ্যানেল যদি সংশ্লিষ্ট দলের কোনো খেলোয়াড়কে নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান করতে চায় তবে মোটা অর্থ ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকরা পায়।

2.টিম স্পনসর্শিপ

আইপিএল দলের মালিকদের দ্বিতীয় সবচেয়ে বড় আয়ের উৎস হল টিম স্পনসর্শিপ। অর্থাৎ প্রত্যেকটি দল যে জার্সি পরে মাঠে নামে সেই জার্সিতে যে ব্র্যান্ডের লোগো গুলি থাকে সেখান থেকে প্রচুর টাকা আয় করে তারা। এছাড়া লোগোগুলি জার্সির কোন অংশে দেখানো হচ্ছে যেমন জার্সির সামনে, জার্সির পেছনে বা কাঁধের উপর ইত্যাদি বিষয়ে অর্থের পরিমাণ নির্ধারিত হয়। এছাড়া কিট স্পনসর থাকে, যারা খেলোয়াড়দের ব্যাগ পত্র স্পনসর করে।

সংশ্লিষ্ট দলের স্পনসররা যদি দলের খেলোয়াড়দের নিয়ে বিজ্ঞাপন করতে চায় বা কোন অনুষ্ঠান করতে চায়, তবে সেখান থেকেও মোটা অর্থ পায় দলের মালিকরা। 

3.স্টেডিয়ামে টিকিট বিক্রি

আইপিএল টিমের মালিকদের তৃতীয় সর্বোচ্চ অর্থ উপার্জনের পথ হল স্টেডিয়ামে বিক্রি হওয়া টিকিট। ঘরের মাঠে ম্যাচের সম্পূর্ণ টিকিটের অধিকার ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো হাতে থাকে। তারা তাদের ইচ্ছামতো টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করার ক্ষমতা রাখে। কিন্তু কিছু বিষয় লক্ষ করা রাখা হয়, যেমন স্টেডিয়ামে দর্শক আসন সংখ্যা, সেখানকার মানুষজনের গড় আয় কত ইত্যাদি। প্রত্যেকটি দলই চায় যাতে স্টেডিয়ামের একটা সিটও খালি না থাকে সেই মতই টিকিটের মূল্য নির্ধারিত হয়।

এক্ষেত্রে বিক্রি হওয়া টিকিটের মূল্যের 80% পায় ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকরা। বাকি 20% বিসিসিআই, স্টেডিয়াম কর্তৃপক্ষ ও স্পনসর কে দেওয়া হয়।

আরো পড়ুন- বিশ্বের দীর্ঘতম গাছ, যার কাছে পৌঁছানো অসম্ভব

আরো পড়ুন- আইপিএল ২০২৩ সবচেয়ে দামি খেলোয়ারদের তালিকা

4.মার্চেন্ডাইজ বিক্রি

প্রতিটি ফ্র্যাঞ্চাইজি তাদের দলের জার্সি, টুপি, স্টিকার ইত্যাদি বিক্রি করে। স্টেডিয়ামে দর্শক ম্যাচ দেখতে আসার সময় প্রচুর পরিমাণে এই মার্চেন্ডাইজ বিক্রি হয় যার থেকেও আয় করে আইপিএল দলের মালিকরা।

5.পুরস্কার মূল্য

আইপিএলের প্রত্যেকটি ম্যাচেই খেলোয়াড়রা পুরস্কার মূল্য বা প্রাইস মানি পেয়ে থাকে। সবচেয়ে বেশি অর্থ পায় ফাইনালে ওঠা দুই দল। বিজেতা দল পায় 20 কোটি টাকা ও রানার্সআপ দল পায় 12 কোটি টাকা, এই অর্থগুলি সংশ্লিষ্ট দল ভাগ করে নেয়। সর্বভারতীয় বিভিন্ন ওয়েবসাইট অনুসারে প্রাইজ মানির অর্ধেক অংশ নেয় মালিকপক্ষ ও বাকি অর্থ টিম সদস্যদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয়।

6.আইপিএল টাইটেল স্পনসর

প্রতিবছরই আইপিএলে প্রধান স্পনসর ছাড়াও যে সহায়ক স্পনসর ব্র্যান্ড গুলি থাকে তাদের কাছ থেকে প্রচুর অর্থ পায় বিসিসিআই। এই অর্থ থেকেও কিছু অংশ 8 টি দলের ফ্র্যাঞ্চাইজিকে দেওয়া হয়। তবে পয়েন্ট টেবিলে দলগুলির অবস্থানের উপর এই অর্থের পরিমাণ নির্ভর করে।

7.স্টল ভাড়া

প্রত্যেকটি স্টেডিয়ামের ভেতরে দর্শকরা যাতে ফাস্টফুড বা পানীয় জল খেতে পারে তার জন্য স্টল বসে বা বিভিন্ন হকার সেগুলি বিক্রি করে। সেই স্টল মালিক বা হকাররা কোন তৃতীয় পক্ষের সাহায্যে স্টেডিয়ামে প্রবেশের অনুমতি পায়। এই তৃতীয়পক্ষ সংস্থার সাথে চুক্তি হয় ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের, প্রতি ম্যাচ বাবদ অর্থ নির্ধারণ হয় তৃতীয় পক্ষ সংস্থার সাথে।

8.নিজেদের সংস্থার প্রচার

আইপিএলের 8 টি দলের মালিকরা বেশিরভাগই বড় ব্যবসায়ী ও কোম্পানির মালিক হয়। ফলে তারা নিজেদের ব্র্যান্ডের প্রচার পুরো দমে চালিয়ে যায়। সেটা খেলোয়াড়দের জার্সি মাধ্যমে, হোম গ্রাউন্ডে পোস্টার ব্যানারের মাধ্যমে বা কোন ইভেন্ট আয়োজনের মাধ্যমে হয়ে থাকে।

আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো কত টাকা আয় করে একটি মৌরসুমে?

শেষে সবারই জানতে ইচ্ছা করছে তাহলে কত টাকা আয় করে আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি গুলির মালিকরা। বিভিন্ন ওয়েবসাইট অনুসারে প্রতিবছর 75 থেকে 150 কোটি টাকা পর্যন্ত আয় হয় ফ্র্যাঞ্চাইজি গুলোর। তবে এই অর্থের পরিমাণ সম্পূর্ণ নির্ভর করে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো ব্র্যান্ড ভ্যালুর উপর।

“আইপিএল দলের মালিকরা কিভাবে আয় করে 2023”-এ 1-টি মন্তব্য

Leave a Reply