হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে টাকা ইনকাম করে

হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে টাকা ইনকাম করে: হোয়াটসঅ্যাপ এটি আমেরিকান কোম্পানিঃ যা ২০০৯ সালে ব্রায়ান অক্টেন, যান কৌম আবিষ্কার করেন। এঁরা দুজনেই ইয়াহুর(Yahoo) প্রাক্তন কর্মচারী ছিলেন। ইয়াহু ছাড়ার পর তাঁরা ফেসবুকের চাকরির জন্য আবেদন করল তাহলে চাকরি পায়নি। এরপর তারা দুজনে মিলে হোয়াটস অ্যাপ তৈরি করে।

প্রথমে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করার জন্য প্রতিবছর ০.৯৯ ডলার অর্থাৎ বর্তমান ভারতীয় ৭৪ টাকায় রিচার্জ করতে হতো। কিন্তু ২০১৪ সালে হোয়াটসঅ্যাপ এর গ্রাহক যখন ৪০০ মিলিয়ন হয়ে যায় তখন ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপ কে কিনে নেয় ১.৫ বিলিয়ন ডলার দিয়ে।

হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে টাকা ইনকাম করে

বর্তমানে সারা পৃথিবীর মোট ১.৫ বিলিয়ন মানুষ হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে। কিন্তু আমাদের মনে প্রশ্ন থাকতে পারে হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে টাকা ইনকাম করে ও কত টাকা ইনকাম করে। কারণ ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপ কে কেনার পর হোয়াটসঅ্যাপ বিনামূল্যে আমাদের পরিষেবা দিচ্ছে। কোন টাকা আমাদের দিতে হয় না এবং হোয়াটসঅ্যাপ কোন রকম বিজ্ঞাপনও দেখায় না। তবে হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে অর্থো উপার্জন করে।

Read More,

How whatsapp earn money in bengali

হোয়াটসঅ্যাপ এর ব্যবসার পদ্ধতি 

হোয়াটসঅ্যাপে আমরা একে অপরকে যে মেসেজ করি, যে গুলো শেয়ার করি, যে ছবিগুলো আপলোড করি, সেই সমস্ত তথ্য হোয়াটসঅ্যাপ বিশ্লেষণ করে এবং আপনি কোন কোন জিনিস পছন্দ করেন, কোন দিকে বেশি আগ্রহী, বর্তমানে আপনি কি করতে চান, কি ধরনের কেনাকাটা করতে চান সেই সমস্ত তথ্য নিজেদের সার্ভারে সংগ্রহ করে।

এই তথ্যের ভিত্তিতে ফেসবুক বিজ্ঞাপন করে। আপনি লক্ষ্য করে দেখবেন আপনি যদি কোনো জিনিস কেনার কথা ভাবেন। তবে আপনি আপনার ফেসবুক হোমপেজে ও গুগলের বিভিন্ন ওয়েবসাইট খুললেন সেই ধরনের বিজ্ঞাপন দেখতে পাবেন। একেই বলে (target audience) নির্ধারিত শ্রোতা।

ফেসবুক ছাড়াও ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব এই তথ্যগুলো কাজে লাগায়। একটি গবেষণা বলে হোয়াটস্যাপ তাদের প্রত্যেক গ্রাহকের থেকে প্রতিবছর ৬০০-৭০০ টাকা উপার্জন করে।

হোয়াটসঅ্যাপের ভবিষ্যত

হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে টাকা উপার্জন করে সেটা আমরা উপরের নিবন্ধটি দেখে কিছুটা হলেও ধারণা পেয়েছি। কিন্তু আমাদের এই হোয়াটসঅ্যাপ ভবিষ্যতে হয়তো এরকম নাও থাকতে পারে। হয়তো আগামী ভবিষ্যতে হোয়াটসঅ্যাপে আমরা বিজ্ঞাপন দেখতে পারি। হোয়াটসঅ্যাপ এর অপর একটি ভাগ যা  ‘হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস’ নামে পরিচিত। সাধারণত ব্যবসায়ী, দোকানদার, কোম্পানি গুলি এই বিভাগটিকে ব্যবহার করে থাকে। যেখানে অটোমেটিক মেসেজ এর বিকল্প উপলব্ধ রয়েছে। ‘হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস‘ অ্যাকাউন্ট প্রিমিয়াম প্লান উপলব্ধ রয়েছে যেগুলো ব্যবসায়ীর টাকা দিয়ে কিনে ব্যবহার করে।

হোয়াটসঅ্যাপে আরো একটি বিভাগ হয়তো আমরা খুব শীঘ্রই আমাদের অ্যাকাউন্টে দেখতে পাবো। সেটি হল ‘হোয়াটস্যাপ মানি ট্রান্সফার’ ফোন-পে, গুগোল-পে এর মত হোয়াটসঅ্যাপেও আমরা একে অপরকে টাকা পাঠাতে পারবো। হোয়াটসঅ্যাপ এর এই বিভাগটি আমেরিকাতে উপলব্ধ হলেও ভারতে এখনো চালু হয়নি। হয়ত খুব শীঘ্রই আমরা ভারতে ‘হোয়াটস্যাপ মানি ট্রান্সফার‘ দেখতে পাবো। বর্তমানে ইন্টারনেটে যে কোম্পানির কাছে যত বেশি গ্রাহক সংখ্যা আছে সেই কোম্পানি তত শক্তিশালী। ইন্টারনেটে কোনো কিছুই বিনামূল্যে পাওয়া যায় না কারণ ইন্টারনেটে আপনি নিজেই একটি পন্য রূপে কাজ করেন।

★★একটা কথা মনে রাখবেন ইন্টারনেটে যদি কোন কিছু আপনি শেয়ার করেন তবে সেটি ইন্টারনেটে থেকে যায়। দৈনন্দিন জীবনে আমরা মোবাইলে যে সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করি, সেগুলির সবারই সুরক্ষা ব্যবস্থা আছে। কিন্তু নিজেদের ব্যবসার জন্য তারা আমাদের তথ্যগুলিকে কাজে লাগায়। হোয়াটসঅ্যাপ এর কাছে আমরা শুধুই একটি পণ্য হিসেবে কাজ করি।

“হোয়াটসঅ্যাপ কিভাবে টাকা ইনকাম করে”-এ 2-টি মন্তব্য

Leave a Reply