মোনালিসা ছবির রহস্য, ইতিহাস | Monalisa Painting History in Bengali

Monalisa painting history in bengali

Monalisa Painting History in Bengali: চিত্রকলা ও শিল্প নিয়ে যারা চর্চা করেন অথবা করেন না তাদের মধ্যে কমবেশি প্রায় সকলেই কখনও না কখনও মোনালিসার চিত্র সম্পর্কে অবশ্যই শুনেছেন। আজ মোনালিসা ছবির রহস্য নিয়ে নিম্নে আলোচনা করা হলো।

মোনালিসা ছবিটি কার আঁকা, মোনালিসা ছবিটির মূল্য কত

১৫০৩ থেকে ১৫০৬ খ্রিস্টাব্দের মধ্যবর্তী সময়ে ইতালির বিখ্যাত শিল্পী লিওনার্দো দা ভিঞ্চি মোনালিসা ছবিটি এঁকেছিলেন, এটি তার অসামান্য কীর্তি। পাইন কাঠের টুকরোর ওপর অঙ্কিত মোনালিসা ছবিটির মূল্য ৮৩০,০০০,০০০ মিলিয়ন ডলার যা ভারতীয় টাকায় ৫৭,১২,০০,০০,০০০ কোটি টাকা। ছবিটি এত মূল্যবান হওয়ার পিছনে যথেষ্ট কারণ রয়েছে, ছবিটিতে লুকানো রয়েছে অনেক রহস্য যা আজ পর্যন্ত পুরোপুরি জানা সম্ভব হয়নি।

মোনালিসা ছবির ইতিহাস

মোনালিসা ছবির রহস্য, ইতিহাস, Monalisa Painting History in Bengali

মোনালিসা ছবিটি সম্পর্কে রহস্য ভেদ করতে গেলে প্রথমে শিল্পী দৃষ্টিভঙ্গি থেকে ছবিটি কে দেখতে হবে, জানতে হবে তার জীবন সম্পর্কে। লিওনার্দো দা ভিঞ্চির পুরো নাম লিওনার্দো দি সের পিয়েরো দা ভিঞ্চি। ১৫ই এপ্রিল ১৪৫২ সালে ইতালিতে তার জন্ম। তার পিতা প্রথম থেকেই ছেলের শিল্পের প্রতি আকর্ষণ ও প্রতিভাকে চিনতে পেরেছিলেন। তিনি লিওনার্দোকে চিত্রশিল্প নিয়ে পড়াশোনা করানোর জন্য প্যারিসে পাঠিয়ে দেন। সেখানে তিনি শিক্ষা গ্রহণ করেন andrea del verrochio এর কাছে। সেখানেই শিল্পকলা নিয়ে সমস্ত কিছু নিখুঁতভাবে শেখেন যা তার শিল্পকলা তে ফুটে উঠতে থাকে। মনে করা হয় মোনালিসা ছবিটি মোনালিসার দ্বিতীয় পুত্র সন্তানের জন্ম গ্রহণের স্মরণে আঁকা হয়। অনেকে শিল্প গবেষক রহস্যময় হাসির এই নারীকে ফ্লোরেনটাইনের বনিক ফ্রানসিসকো দ্যা গিওকান্ডোর স্ত্রী লিসা গেরাদিনি বলে শনাক্ত করেছেন। আবার অনেকের মতে এটি তার কল্পনা থেকে রচিত, আজও জানা যায়নি আসলে মোনালিসা কে।

মোনালিসা ছবির রহস্য

মোনালিসা ছবির রহস্য গুলি সম্পর্কে এবার জানা যাক। ছবিটি দেখে অনেকেই বলেছেন এখানে হাস্যময়ী এক নারীকে দেখা যাচ্ছে আবার অনেকে তার দুঃখে ভরা মুখটি দেখতে পেয়েছেন। অনেকে এটাও বলেছেন ছবিটি এক এক দিক থেকে এক এক রকম দেখতে বলে মনে হয়, এর আসল কারণ কি তা কেউই জানেন না। ৫১ বছর বয়সে তিনি এটা তৈরি করা শুরু করেন এবং প্রায় ১৬ বছর ধরে এটি তৈরি করেন শুধুমাত্র ঠোঁট আঁকতে তার সময় লেগে যায় প্রায় ১২ বছর। তবুও তিনি এটি সম্পূর্ণ করতে পারেননি, গবেষকদের বারবার গবেষণার পরও জানা যায়নি এর কোন অংশের কাজ এখনো অসম্পূর্ণ। মোনালিসার ছবিটি ফ্রান্সের ল্যুভ জাদুঘরে সংরক্ষিত আছে। ২১শে আগস্ট ১৯১১ সালে এটি চুরি হয়ে যায়। জাদুঘরেরই এক কর্মচারী  vincenzo peruggia এটি চুরি করে, তারপর এটি আবার উদ্ধার হয় ইতালি থেকে এবং এটির রক্ষণাবেক্ষণ করাটা আরো জরুরি হয়ে পড়ে।

Monalisa Painting History in Bengali

রহস্যময় মোনালিসার ছবিটির আরেকটি অংশ সকলেই লক্ষ্য করেছেন, এটি হলো তার ‘ভ্রূ‘। ছবিটিতে কোন ‘ভ্রূ‘ না থাকা সত্ত্বেও ছবিটির সৌন্দর্যে কোন রকম প্রভাব ফেলেনি। অনেকেই মনে করেন লিওনার্দো ভ্রু বানিয়েছিলেন, কিন্তু একাধিকবার এটি পরিচর্যার জন্য তা মুছে যায়। অনেক গবেষকের মতে লিওনার্দোর নিজেরই মহিলা প্রতিকৃতি এটি। মোনালিসার চোখের একাধিকবার যাচাই করার ফলে দেখা গেছে সেখানে লেখা রয়েছে ‘l V’ এই শব্দটি, যা লিওনার্দো দা ভিঞ্চি কেই নির্দেশ করে। ছবিটির আরেকটি বিশেষত্ব হলো এটি কে দূর থেকে দেখলে মনে হয় এটি হাসছে এবং কাছে আসলে দেখা যায় হাসিটি আস্তে আস্তে মিলিয়ে যাচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন ছবিটি ৩০টি লেয়ার বিশিষ্ট, যা একেবারেই নিখুঁত ও চমকপ্রদ। একটি প্যারানরমাল এক্টিভিটি নিয়ে গবেষণা করা ওয়েবসাইট প্যারানরমাল ক্রুসাইবেল জানিয়েছেন ছবিটিকে যখন আয়নার পাশাপাশি রাখা হয় তখন সেখানে একটি ভিনগ্রহের প্রাণীর দেখা যায়। যা অবিশ্বাস্য হলেও তথ্যটি কে একেবারে ফেলে দেওয়া যায় না। এই সমস্ত তথ্যগুলি সকলকে এই ছবিটি বিষয়ে বারবার করে ভাবনা চিন্তা করতে বাধ্য করে। এমন এক অকল্পনীয় চিত্রকলা সত্যিই আজও রহস্যে ভরা যা হয়ত ধীরে ধীরে উন্মোচিত হবে, আবার নাও হতে পারে। 

মোনালিসার রহস্যময় হাসি: কে এই মহিলা

প্রায় ৫০০ বছর আগে আঁকা লিওনার্দো ভিঞ্চির বিশ্ব বিখ্যাত ছবি মোনালিসার এই রহস্যময় হাসি ও তার পেছনে কোন মহিলা রয়েছে এই বিষয়ে মানুষের কৌতুহল চিরকাল রয়েছে। ফ্রান্সের ল্যুভ মিউজিয়ামে এখনো সেই ঐতিহাসিক ছবিটি রয়েছে যাকে দেখতে প্রত্যেকদিন হাজার হাজার দর্শনার্থী মিউজিয়ামে প্রবেশ করে। বিগত কয়েকশো বছর ধরে প্রচলিত হয়ে আসছে যে ফ্লোরেন্সের সেই সময়কার একজন সিল্ক ব্যবসায়ীর স্ত্রী হলেন এই মোনালিসার ছবির মহিলা। তার নাম ছিল লিসা গেরারদিনির। লিওনার্দো দা ভিঞ্চি তারই পোট্রেট ছবি তৈরি করেছিলেন।

তবে এই ধারণাকে ভুল বলে ব্যাখ্যা করেছে ফ্রান্সের এক গবেষক তার মতে মোনালিসা পোর্ট্রেটের মধ্যে যে ছবিটি রয়েছে সেটি অন্য কোন মহিলার যা নিয়ে পুনরায় শিল্পী মহলে আলোচনা শুরু হয়। ২০০৪ সালে ফ্রান্সের এই কবে সব মোনালিসা ছবিটির বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে ছবি তোলেন এবং তিনি বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে বলেন যে ছবিতে যে মহিলা রয়েছে তিনি লিসা গেরারদিনি নন। তিনি এই বিষয়ে আরও ব্যাখ্যা করেছেন যে বর্তমানে আমরা প্রযুক্তির মাধ্যমে ছবির ভেতরের চিত্রকে পর্যবেক্ষণ করতে পারি। যেরকম শিল্পী কোথা থেকে চিত্রটি আঁকা শুরু করেছে, কোথায় শেষ করেছে, কিরকম ভাবে এঁকেছেন, কতগুলি ধাপে চিত্রটি সম্পন্ন করেছেন ইত্যাদি।

মোনালিসা ছবিটির মধ্যে তিনটি ছবি রয়েছে যেগুলি সাধারণ মানুষ খালি চোখে দেখতে পাবে না। তৃতীয় যে ছবিটি তার পর্যবেক্ষণের ধরা পড়েছে সেই বিষয়ে ফ্রান্সের গবেষক বলেছেন, ওই মহিলার মুখের কোন হাসি তিনি দেখতে পাননি। তবে লিওনার্দো দা ভিঞ্চিকে নিয়ে যারা গবেষণা করেন তাদের মত সম্পূর্ণ ভিন্ন। বিভিন্ন আর্টিস্টদের মতে নতুন এই আবিষ্কার একপ্রকার একটি পুকুরে ঢিল ছড়ার মত।

Previous articleপৃথিবীর সবচেয়ে নোংরা মানুষ। যে 65 বছর স্নান করেনি
Next articleভারতের এই প্রান্তে হিট করলো ভূমিকম্প, দেখুন বিস্তারিত
আমরা Extra Gyaan এর সদস্যরা পেশাগতভাবে ব্লগিং এর সঙ্গে যুক্ত। আমরা ইন্টারনেট, প্রযুক্তি, নাসা, মহাকাশের বিভিন্ন তথ্য, শিক্ষাগত দিক ও খেলাধুলার বিষয়ে নিবন্ধ লিখে থাকি সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায়। আমাদের উদ্দেশ্য হলো বাংলা ভাষায় আপনাদের সামনে সেরা তথ্য তুলে ধরা।

5 COMMENTS

Leave a Reply